1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. chattogramerkhobor@gmail.com : Admin Admin : Admin Admin
মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ ঐক্য পার্টি’র তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ ও দেশ নিয়ে দলটির ভাবনা চট্টগ্রাম একাডেমির পরিচালনা পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সবুর’র কবরে তসলিম উদ্দিন রানার শ্রদ্ধা নিবেদন  খাগড়াছড়ির তিন সাংবাদিকসহ সাতজনের বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যানের মামলা কবি মোঃ নেছার’র ‘পরাণ’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন জমকালো আয়োজনে শেষ হলো ব্যাচ ৯৪ বিডি’র ফ্রেন্ডস ফেস্টিভ্যাল ২০২৩ বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দীন। আনোয়ারার শিব ঠাকুর ও শীতলা মায়ের মন্দিরের বাৎসরিক মহোৎসব সম্পন্ন পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বনভোজন দৈনিক সকালের সময়ের প্রীতি সম্মিলনী

শ্বশুর-শ্বাশুড়ির নির্যাতনে গৃহবধূ ও নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি – মুহাম্মদ আলী

  • সময় শনিবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ১৫০ পঠিত

মিরসরাইয়ের করেরহাটে স্বামী, শ্বশুর শ্বাশুড়ির অবহেলা ও অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে ভূমিষ্ঠ হয়ে নবজাতকের মৃত্যু এবং দীর্ঘ ১৫ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার বেলা সোয়া দুইটার দিকে মারা গেছে গৃহবধূ রিমা আক্তার (২১)।

গৃহবধূ রিমা আক্তার উপজেলার করেরহাট ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ অলিনগর গ্রামের মাদু মিস্ত্রি বাড়ির মামুদুল হকের মেয়ে ও একই এলাকার জাফর মিস্ত্রি বাড়ির জাফর আহম্মদের পুত্র ওসমান গণির স্ত্রী।
প্রসঙ্গত, গত ২৭ জানুয়ারি দিবাগত রাত নয়টার দিকে গৃহবধূ রিমা আক্তারের প্রসব বেদনা উঠলে স্বামী, শ্বশুর শ্বাশুড়ির অবহেলায় সারারাত প্রসব বেদনা সহ্য করে ২৮ জানুয়ারি সকালে ভূমিষ্ট হয়ে নবজাতকের মৃত্যু হয় এবং গোপনে দাফন করা হয়। পরবর্তীতে অসুস্থ গৃহবধূ রিমা আক্তারকে প্রথমে বারইয়াহাট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়, সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার বেলা সোয়া দুইটার দিকে সে মারা যায়।

এক বিবৃতিতে বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এম জাফর উল্লাহ ও মহাসচিব মুহাম্মদ আলী উক্ত এই মর্মান্তিক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, সরকার নারী ও শিশু নির্যাতনের সর্বোচ্চ শাস্তির ঘোষণার পরও নারী নির্যাতনের হার হার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর তাই এই ধরনের ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে হলে সামাজিক ভাবে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এবং তার পাশাপাশি দোষীদের খুব দ্রুত বিচারের আওতায় এনে শাস্তি কার্যকর করতে হবে তবেই নারী ও শিশু নির্যাতনের হার কমে আসবে বলে মনে করেন তারা।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট