1. news@dainikchattogramerkhabor.com : Admin Admin : Admin Admin
  2. info@dainikchattogramerkhabor.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
“নববর্ষের চেতনা” রচনায়ঃ মোহাম্মদ আব্দুল হাকিম (খাজা হাবীব ) সিলেটে ঈদ উপহার দিলেন মনচন্দ্র সুশীলা, বিমান পটু ও রেনুপ্রভা প্রিয়রঞ্জন ফাউন্ডেশন বটতল ফাউন্ডেশন এর উপদেষ্টা ও কার্যকরী কমিটির পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা মাইজভান্ডারি সূর্যগিরি আশ্রম শাখার উদ্যোগে ঈদ বস্ত্র-সামগ্রী প্রদান “বাঁকা চাঁদের হাসি” রচনায়ঃ মোহাম্মদ আব্দুল হাকিম (খাজা হাবীব ) পটিয়া বিভিন্ন ইউনিয়নে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা তসলিম উদ্দীন রানা সিলেটে ঈদ উপহার বিতরণ করেছেন সিলেট চট্টগ্রাম ফ্রেন্ডশিপ ফাউন্ডেশন “ঈদুল ফিতর” রচনায়ঃ মোহাম্মদ আব্দুল হাকিম (খাজা হাবীব) পবিত্র ঈদ সবার জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল সুখ শান্তি, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি – লায়ন মোঃ আবু ছালেহ্ একীভূত হচ্ছে না কোন ইসলামী ব্যাংক, তালিকায় রয়েছে অন্য ৯টি

রাজারহাট প্রাণিসম্পদ ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের আয়োজনে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

  • সময় সোমবার, ২০ জুন, ২০২২
  • ১৩৪ পঠিত

মোঃ শফিকুল ইসলাম রাজারহাট(কুড়িগ্রাম):

আজ ২০/০৬/২০২২ ইং ১০ ঘটিকায় অফিসার্স ক্লাবে আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে কোরবানির পশুর চামড়া ছড়ানো ও সংরক্ষনের বিষয়ে ইসলামী ফাউন্ডেশন/মসজিদের ইমাম মাদরাসার ছাত্র/ ব্যবসায়ী ও অন্যান্য স্টেক হোল্ডারদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয় । উক্ত মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন, রাজারহাট উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডাঃ মোঃ মাহফুজার রহমান ও ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ পবিত্র কুমার ।

মতবিনিময় সভার আলোচ্য বিষয়গুলো ছিলো-
কোরবানির পশু জবাই, চামড়া ছাড়ানো এবং সংরক্ষণে করণীয়
জবাইপূর্ব প্রস্তুতিঃ> জবাই করার পূর্বে পশুকে ভালভাবে গোসল করিয়ে নিতে হবে যাতে পশুর দেহে কোন ময়লা না থাকে।
জবাইয়ের ১২-১৪ ঘন্টা পূর্বে পশুকে দানাদার খাবার দেয়া বন্ধ করতে হবে কিন্তু জবাই করার হবে। এতে পশুর দেহ থেকে চামড়া ছাড়ানো সহজ হবে। ২ ঘন্টা পূর্বে পশুকে প্রচুর পানি পান করাতে হবে।
পশু শোয়ানোর পূর্বেই জবেহ করার স্থানে ছোট্ট একটি গর্ত করে নিতে হবে এবং শোয়ানোর পর পর মাথা গর্ভের কাছাকাছি নিয়ে জবেহ করলে রক্ত করে গর্তে গিয়ে জমা হবে।

পশু শোয়ানোর নিয়মঃ>পশুকে জবাই করতে মাটিতে শোয়াবার সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে, যেন পশুর দেহে চোট লেগে চামড়া থেঁতলে না যায়।
একটা ১০-১২ হাত মাপের শত্রু দড়ি দু’ভাজ করে দড়ির বন্ধ প্রান্ত পাঁড়ানো পশুর পেটের নিচ দিয়ে অপর দিকে নিয়ে পশুর শিরদাড়ার কাছাকাছি পর্যন্ত উপরো উঠান। এরপর দুভাজ করা দড়ির খোলা প্রান্ত পশুর পিঠের উপর দিয়ে বন্ধ প্রান্তের মধ্যে ঢুকিয়ে এক প্রান্ত পশুর মাথার দিকে এবং অন্য প্রান্ত পশুর লেজের দিকে নিয়ে দু’প্রান্ত থেকে সজোরে টানলে পশু সহজেই মাটিতে শুয়ে পড়বে।

চামড়া ছাড়ানোঃ অবশ্যই দক্ষ ব্যক্তিকে দিয়ে পশুর চামড়া ছাড়াতে হবে।
পশু জবেহ করতে তীক্ষ্ণ ধারালো বড় ছুরি এবং চামড়া ছাড়ানোর জন্য তুলনামুলকভাবে কম ধারালো মাথা বাঁকানো ছোট চুরি ব্যবহার করতে হবে।
জবাই করার পর পশুর দেহ নিস্তেজ হয়ে গেলে পশুকে চিৎ করে শুইয়ে দু’পাশে ঠেস দিতে হবে। এতে চামড়ায় চুরির কাটা দাগ লাগার সম্ভাবনা থাকেনা।।
প্রথমে ছুরি দিয়ে চার পায়ের ক্ষুরের সামান্য উপরে রিং এর মত করে চামড়া কেটে দিতে হবে।
বড় চুরির অগ্রভাগ দিয়ে জবাই করার স্থান থেকে গলা, সিনা ও পেটের মাঝখান বরাবর অন্তরোগ/ওলানের পেছনে মলদ্বার পর্যন্ত সোজাসুজি চামড়া ফেড়ে নিতে হবে।
সামনের দু’পায়ের হাঁটু বরাবর সিনা পর্যন্ত চামড়া ফেড়ে সিনার উপর দিয়ে কাটা অংশের সাথে মিলিয়ে দিতে হবে।
একই ভাবে, পিছনের দু’পায়ের হাঁটু থেকে অন্ডকোষের মাঝ বরাবর চামড়া কেটে প্রথমস্ত লম্বা কাটা দাগের সাথে মিলিয়ে দিতে হবে।
কোনক্রমেই চামড়ায় যে কোন কাটা দাগ আকাবাঁকা না হয় সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।
ছোট পশুকে গাছের ডালে বা ঝুলনের সাথে ঝুলিয়ে চামড়া ছাড়ানো সুবিধাজনক।
চামড়া ছাড়ানোর সময় চামড়ার সাথে কোনক্রমেই যেন গোশত, চর্বি বা ঝিল্লি লেগে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

চামড়া সংরক্ষনঃ >চামড়া ছাড়ানোর পর ছাড়ানো চামড়া মাটিতে ছেঁচড়ানো যাবেনা।
চামড়া ভালভাবে পানিতে ধুয়ে লেগে থাকা রক্ত, গোবর এবং কাদাযুক্ত মাটি পরিষ্কার করতে হবে।

চামড়ায় লেগে থাকা অতিরিক্ত গোশত, চর্বি এবং ঝিল্লি ছুরি দিয়ে ভালভাবে উঠিয়ে ফেলতে হবে (যদি থাকে), তা নাহলে ঐ সমস্ত স্থানে লবণ প্রবেশ করবে না।
ছাড়ানোর পর চামড়া যত শীঘ্র বিক্রয় কেন্দ্রে পাঠাবার ব্যবস্থা করতে হবে।
৫-৬ ঘন্টার মধ্যে চামড়া বিক্রি না হলে তা সংরক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে।
চামড়ার গোশতের পিঠ উপরের দিকে রেখে মুঠি মুঠি লবণ ছড়িয়ে হাত দিয়ে ভালভাবে ঘসে তাতে লবণ লাগিয়ে দিতে হবে।
প্রথমবার লাগানো লবন চুষে নিলে আরও একবার লবণ ছড়িয়ে দিতে হবে। > প্রতিটি গরুর চামড়ার জন্য ৫-৭ কেজি, এবং প্রতিটি ছাগল/ভেড়ার চামড়ার জন্য ১.৫-২ কেজি লবণ দরকার হয়।
শ্লোগান
যত্র তত্র পশু জবাই না করে নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই করতে হবে।
পরিবেশ দূষণ রোধে কোরবানির বর্জ্য/উচ্ছিষ্ট অপসারনের পর ওই স্থানের রক্ত ভালভাবে ধুয়ে পরিস্কার করে সেখানে জীবাণুনাশক, চুন বা ব্লিচিং পাউডার প্রয়োগ করতে হবে।

আলোচনার মুল প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো চামড়া একটি মূল্যবান জাতীয় সম্পদ। তাই সঠিক পদ্ধতিতে পশুদেহ হতে চামড়া ছাড়ানো এবং সংরক্ষণ করা আপনার, আমার সবার দায়িত্ব।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
ওয়েবসাইট ডিজাইন: ইয়োলো হোস্ট