1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. chattogramerkhobor@gmail.com : Admin Admin : Admin Admin
রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দীন। আনোয়ারার শিব ঠাকুর ও শীতলা মায়ের মন্দিরের বাৎসরিক মহোৎসব সম্পন্ন পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বনভোজন দৈনিক সকালের সময়ের প্রীতি সম্মিলনী এশিয়ান আবাসিক স্কুলের সাফল্য ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছে রাকিব বাকলিয়ায় মাদকাসক্ত মানসিক ভারসাম্যহীন যুবকের আঘাতে নৈশ প্রহরী খুন বরইতলী সমাজ উন্নয়ন ফোরাম’র আয়োজনে সাধারণ জ্ঞান, কোরআন প্রতিযোগিতা ও ইসলামী সম্মেলন সম্পন্ন আনোয়ারায় মাটি কাটার দায়ে দেড় লাখ টাকা জরিমানা গ্রীন বাডস স্কুল এন্ড কলেজে প্রশিক্ষণ কর্মশালা মাতামুহুরি স্পোর্টিং ক্লাব আয়োজিত ফুটবল টুর্ণামেন্টে ফাইনালে আবির স্পোর্টিং ক্লাব

সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মামলা! আট বছর পরে থানার মাধ্যমে সংবাদ পেলো ভুক্তভোগী

  • সময় শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৪৪ পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চট্টগ্রামের এক প্রবীণ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা হয়েছে। চন্দনাইশ থানার মামলা নং-১৩, ২০/০১/২০১৫ইং ধারা-বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ সনের ১৫(১০ এর (ক)। মামলার বাদী কে তাও জানানো হয়নি। তিনি চট্টগ্রাম জেলার চন্দনাইশ থানার দোহাজারী পৌরসভার ফুলতলার স্থানীয় মৃত সামশুল হুদার ছেলে কামরুল হুদা। তাকে ৪২ নং আসামি করা হয়েছে। সাংবাদিক কামরুল হুদা চট্টগ্রাম নগরীতে ৪২ বছর যাবৎ অবস্থান করছেন এবং দীর্ঘদিন যাবৎ সাংবাদিকতা পেশায় জড়িত আছেন। ঈদের সময় ছাড়া তিনি বাড়ীতেও যান না। গত ২১ ডিসেম্বর সকাল ১০ টা ৪০ মিনিটে দোহাজারী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এস আই মো: বিলাল হোসাইন (০১৮১৮-৬২৬৬২৫) ফোন দিয়ে বলেন আমি একটা তথ্যের জন্য ফোন দিয়েছি, ২০১৫ সালে বিশেষ ক্ষমতা আইনে যে আপনার নামে মামলা হয়েছিল। কি বলেন, কামরুল হুদা, পিতা সামশুল হুদা এত বড় মামলা হয়েছে ২০১৫ সালে, জামিন-টামিনও নেননি, আচ্ছা ঠিক আছে ভাই। এস আই সাহেব ফোন দেয়ার পর দীর্ঘ আট বছর পর মামলা হয়েছে তা জানতে পারেন বলে জানান সাংবাদিক কামরুল হুদা। তিনি আরো জানান, আমি ঈদের সময় ছাড়া বাড়ী-ঘরেও যাই না। কেন আমার বিরুদ্ধে মামলা, আমি কোন রাজনৈতিক দলও করি না, আমি সাংবাদিকতা পেশায় জড়িত। একজন দেশের সচেতন নাগরিক হিসেবে আমার বিরুদ্ধে এত বড় একটা মিথ্যা মামলা। আইনশৃংখলা বাহিনী জানে না কে অপরাধী, কে অপরাধী নয়। মামলা হওয়ার পর নিশ্চয় পুলিশ তদন্ত করে দেখেছে, তাহলে পুলিশ কি তদন্ত করলো? একজন দেশের গুরত্বপূর্ণ ব্যাক্তির বিরুদ্ধে মামলা হল আট বছর পার তিনি আজ জানতে পারলো। সাংবাদিক কামরুল হুদা জানান, আমরা কি এভাবে মিথ্যা মামলার বেড়াজালে বন্দি হয়ে থাকবো? রাষ্ট্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেমন এ দেশের উন্নয়ন চায়, তেমনি এ দেশের সাংবাদিক সমাজও। সাংবাদিকরা দেশের বাইরে নয়। তাহলে সবার মতো সাংবাদিকদেরও নিরাপত্তা বিধানে রাষ্ট্রকে এগিয়ে আসতে হবে। যারা সাংবাদিকতার মতো মহান পেশাকে ধারণ করে জীবিকা নির্বাহ করছে, তাদের মধ্যে ঐক্যের অভাব আছে এটা কর্মরত সাংবাদিকদের শিকার করতে হবে। হয়তো প্রতিবাদের সময় মানববন্ধন বা সভা-সমাবেশে একসঙ্গে দাঁড়াচ্ছে কিন্তু মনস্তাত্তিকভাবে অনেকেই আন্তরিক নয়। পেশার প্রতি ভালোবাসা না কোনো রকম জীবিকা নির্বাহ যেন তাদের মুখ্য উদ্দেশ্য। কটি মানববন্ধন করে কখনো এ ধরনের ঘটনাকে শেষ ঘটনা হিসেবে দেখা যাবে না। বর্তমানে সাংবাদিকদের মধ্যে একতার অভাব। সবাই ব্যক্তিস্বার্থ, রাজনৈতিক স্বার্থ নিয়ে চিন্তা না করে কর্মরত সাংবাদিকদের জন্য কাজ করতে হবে। সব শেষে ঐক্য ছাড়া সাংবাদিক সমাজের কোনো বিকল্প নেই।
বর্তমানে এই বিষয়টি নিয়ে চট্টগ্রামে কর্মরত বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে, এ বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের একটাই দাবি অনতিবিলম্বে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে উক্ত মামলা থেকে প্রবীণ সাংবাদিক কামরুল হুদার নামটি বাঁধ দেওয়া হোক সেইসাথে যে এই জঘন্য কাজটি করেছে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপরস্থ কর্মকর্তাদের প্রতি দাবি জানাচ্ছে।
এ মামলার বিষয়ে অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন থেকে জানতে চাইলে তিনি জানান, এই মামলাটি খুঁজে বের করতে হবে, এটাতো ৮ বছর আগের ঘটনা। মামলাগুলোর কি অবস্থা আসামি কারা ছিল যাচাই করা হচ্ছে তাই কলটা দেয়া হয়েছে। ২০১৫ সালের ফাইলগুলো দেখতে হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট