1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Admin Admin : Admin Admin
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
“মুক্ত পাঠাগার” এর চট্টগ্রাম জেলা শাখার ১ম লেখক আড্ডা বাকলিয়ায় ২২ নং বিট পুলিশ ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত সৈয়্যদা মাদিহা আল বাতুল গোল্ডেন A+ পেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জনসভার সফলতা আ জ ম নাছিরের অগ্নিপরীক্ষা চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহারকারী শ্রমিক কর্মচারী লীগের প্রস্তুতি সমাবেশে আ জ ম নাছির উদ্দীন। চট্টগ্রামে শেখ হাসিনার জনসভায় শ্রমিক কর্মচারীদের সর্বোচ্চ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে -আবুল হোসেন আবু নুসরাত জাহান (ঝুমুর) এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেলো। জঙ্গল সলিমপু’রে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত ওসমান গনি। পটিয়া ৯৪ এর ফ্যামিলি মিলন মেলা ও মেজবান উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন গাউসে পাকের শিক্ষা পাঁচ ওয়াক্ত নামায যথাসময়ে আদায় করা- ফাতেহা-ই ইয়াজদাহুম মাহফিলে বক্তারা

সাংগঠনিক দক্ষতা ও মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্

  • সময় সোমবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২১
  • ১২৮ পঠিত

সাংগঠনিক দক্ষতা ও মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত
অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্

অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হতে বি.কম (অনার্স), এম.কম. (হিসাব বিজ্ঞান), এম. কম. (অর্থ বিজ্ঞান), সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ, চট্টগ্রাম থেকে বি.এড. এবং এম.এড. ডিগ্রি লাভ করেন। নট্রামস অনুমোদিত (নিটা) হতে ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সায়েন্স এবং যোগ ফাউন্ডেশন হতে গুরুজী শহীদ আল বোখারী কর্তৃক ই.এস.পি. গ্রাজুয়েশন ও মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেন। বর্তমানে রিসার্স ইন টিচার্স ট্রেনিং এডুকেশন (আইএপি-ইউকে)-এ গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন ভার্জিনিয়া থেকে “ইউরোপীয় ইউনিয়নের নয়া কৌশল ও মধ্য এশিয়ার উপর এর প্রভাব-একটি তুলনামূলক বিশ্লেষণ” বিষয়ে তিনি পিএইচ ডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ্র সাংগঠনিক পরিচয় ও পরিধি অনেক ব্যাপক ও বিস্তৃত। সাংগঠনিক দক্ষতা ও মানবিকতার তিনি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম কয়েকটির বিবরণ তুলে ধরতে গেলে প্রথমেই আসে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এতিমখানা কদম মোবারক মুসলিম এতিমখানার প্রসঙ্গ। এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ অসামান্য ভ‚মিকা পালন করে যাচ্ছেন। দীর্ঘ ১২ বছর ধরে উক্ত প্রতিষ্ঠানের সহসভাপতির পদে থেকে প্রতিষ্ঠানটির গুণগতমান বৃদ্ধির মাধ্যমে তিনি ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেন। বর্তমানে তিনি কদম মোবারক মুসলিম এতিমখানার শিক্ষা সম্পাদক হিসেবে নিয়োজিত আছেন।

২০০০ সাল থেকে তিনি জড়িয়ে আছেন বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় ও প্রসিদ্ধ হাসপাতাল চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে। বিভিন্ন মেয়াদে নির্বাহী সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে তিনি এই প্রতিষ্ঠানটির সেবামূলক মানোন্নয়ন ও গতিশীলতায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। বর্তমানেও তিনি নির্বাহী সদস্য সফলভাবে তাঁর দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা ও মেডিকেল কলেজের ট্রাস্ট্রি বোর্ড গঠনের ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ক্যাটাগরিতে গভর্নিংবডির সদস্য হিসেবেও তিনি কর্মরত রয়েছেন। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য ও ট্রাস্ট্রি মেম্বার। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের অধীনে বিএসসি নার্সিং কলেজ ও ডিপ্লোমা ইন নার্সিং কোর্সের সরকারি অনুমোদনের জন্য প্রজেক্ট প্রোফাইল তৈরিসহ একাডেমিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। ক্যান্সার হাসপাতাল এন্ড রিচার্স ইনস্টিটিউট বাস্তবায়ন কমিটি এবং করোনা ম্যানেজমেন্ট কমিটির তিনি জয়েন্ট মেম্বার সেক্রেটারির দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও, জাবেদ সরফদ্দীন কার্ডিয়াক ইউনিট বাস্তবায়ন কমিটি, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি দায়িত্বরত আছেন। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ছাড়াও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রোগী কল্যাণ সমিতি এবং চট্টগ্রাম ডায়াবেটিস জেনারেল হাসপাতালের নির্বাহী সদস্য হিসেবে তিনি দায়িত্বরত রয়েছেন। মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা-চট্টগ্রাম মহানগর, সবুজ আন্দোলন-চট্টগ্রাম মহানগর, বঙ্গবন্ধু শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটি এবং কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি হিসেবে তিনি সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। উপকূলীয় উন্নয়ন ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি হিসেবেও তিনি দায়িত্বরত আছেন।

চট্টগ্রাম শহর সমাজ সেবা প্রকল্প ৩, সমাজ সেবা অধিদপ্তর, চট্টগ্রামের ট্রেজারার হিসেবে এক যুগেরও বেশি সময়কাল ব্যাপি তিনি অসাধারণ দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। মেরিট বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের অধীনে ভাড়া বাসায় প্রথম অনুমোদন নিয়ে ১৯৯৮ সালে প্রি-নার্সারি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত চট্টগ্রামের সাড়া জাগানো সর্বপ্রথম সফল ক্লাসনির্ভর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি চট্টগ্রামে শিক্ষা বিপ্লব সৃষ্টি করেন। তিনি অত্র প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োজিত আছেন। বর্তমানে মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত ও অনুমোদিত একটি জনপ্রিয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। একই সাথে নগরীর প্রাণকেন্দ্র বহদ্দারহাট খাজা রোড নতুন চান্দগাঁও থানার পাশে ক্লাসনির্ভর শিক্ষা ও আধুনিক শিক্ষায় মানসম্পন্ন মেরিট বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজ নামের আরো একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন তিনি এবং এটিও সরকার কর্তৃক স্বীকৃত ও অনুমোদিত। এছাড়া, মেরন সান কলেজ ও মেরিট বাংলাদেশ কলেজ নামে দুটো রাজনীতিমুক্ত ও উন্নত হোস্টেল সুবিধাযুক্ত ক্লাসনির্ভর কলেজও তিনি প্রতিষ্ঠা করেন এবং উভয় কলেজ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদিত চট্টগ্রামের একমাত্র বিশেষায়িত বিপিএড কলেজ চিটাগং ফিজিক্যাল এডুকেশন কলেজেরও তিনি প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান। যুগান্তকারী শিক্ষা বিপ্লব ছাড়াও মেরিট বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের অধীনে তিনি পরিচালনা করছেন যুগোপযোগী বনায়ন ও মৎস্য প্রকল্প। দেশের অর্থনীতিতে এসব প্রকল্পের মাধ্যমে তিনি অসাধারণ অবদান রেখে যাচ্ছেন। এছাড়াও, পণ্য উৎপাদন শিল্পের ক্ষেত্রেও তাঁর ভ‚মিকা প্রশংসনীয়। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের অধীনে তিনি প্রতিষ্ঠা করেছেন মেরিট ফুডস এন্ড এস.আর ফুডস ইন্ড্রাস্ট্রি। উল্লেখ্য, বাকলিয়াসহ চট্টগ্রামের অধিকাংশ সংগঠন ও ক্লাব তাঁর পৃষ্ঠপোষকতায় গড়ে উঠেছে।

একজন ব্যক্তির মধ্যে একাধারে এতগুলো গুণ ও প্রতিভার সমাহার সত্যিই বিরল। একদিকে সাংগঠনিক দক্ষতা ও মানবিকতার তিনি অনন্য উদাহরণ, অপরদিকে উদ্যোক্তা হিসেবে তিনি অসংখ্য মানুষের অনুকরণীয় আদর্শ। তিনি একাধারে একজন দক্ষ শিক্ষক, গুণী শিক্ষাবিদ, উত্তম প্রশিক্ষক, দক্ষ প্রশাসক, অসাধারণ সংগঠক, সফল সমাজসেবক, পরিবেশ গবেষক ও উদ্যোক্তা। যেকোনো জনগুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বপালনের জন্যে এধরনের গুণীজন সর্বদাই প্রথম সারির যোগ্যব্যক্তি হিসেবে বিবেচিত।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট