1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. chattogramerkhobor@gmail.com : Admin Admin : Admin Admin
মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
বাংলাদেশ ঐক্য পার্টি’র তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ ও দেশ নিয়ে দলটির ভাবনা চট্টগ্রাম একাডেমির পরিচালনা পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সবুর’র কবরে তসলিম উদ্দিন রানার শ্রদ্ধা নিবেদন  খাগড়াছড়ির তিন সাংবাদিকসহ সাতজনের বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যানের মামলা কবি মোঃ নেছার’র ‘পরাণ’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন জমকালো আয়োজনে শেষ হলো ব্যাচ ৯৪ বিডি’র ফ্রেন্ডস ফেস্টিভ্যাল ২০২৩ বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দীন। আনোয়ারার শিব ঠাকুর ও শীতলা মায়ের মন্দিরের বাৎসরিক মহোৎসব সম্পন্ন পটিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বনভোজন দৈনিক সকালের সময়ের প্রীতি সম্মিলনী

যিলহজ মাসের প্রথম দশদিনের আমল আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় -অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী

  • সময় মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১
  • ২০৭ পঠিত

মহান আল্লাহ তায়ালা বছরের বিশেষ মাসকে সম্মানিত করেছেন যেমন-মাসের মধ্যে শ্রেষ্ঠ মাস-রমজান, কিতাবের মধ্যে শ্রেষ্ঠ কিতাব-কুরআন, নবীদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ নবী-নবী করিম (সা.), সপ্তাহের মধ্যে শ্রেষ্ঠ দিন- জুমা, বছরের মধ্যে সেরা দিন হলো- আরাফার দিন, শ্রেষ্ঠ দশরাত্রি হলো- রমজানের আখেরি দশরাত্রি, আর বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ দশদিন হচ্ছে, যিলহজের প্রথম দশদিন। যিলহজ মাস হজের মাস। এ মাসের গুরুত্ব অপরিসীম। এটি চন্দ্র মাসের সর্বশেষ মাস। বিশেষত এ মাসের প্রথম দশদিনের ফযিলত সম্পর্কে পবিত্র কুরঅান ও হাদিসে বিশেষভাবে বর্ণিত হয়েছে। যেমন আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন-ফজরের শপথ! দশরাত্রির শপথ। সূরা ফজর, আয়াত:১-২। হযরত আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) এরশাদ করেন- যিলহজ মাসের প্রথম দশদিনের ইবাদতের চেয়ে আল্লাহর কাছে অন্য কোন ইবাদত অতি প্রিয় নয়। এ দিনগুলোতে রোযা রাখলে পুরো বছর রোযা রাখার সমান সওয়াব পাওয়া যায় এবং এ রাতগুলোতে কিয়ামুল লাইল করলে লাইলাতুল কদরে কিয়ামুল লাইলের সমান সওয়াব পাওয়া যায়। তিরমিযী শরীফ, ইবনে মাজা শরীফ ১/৫৫১। হযরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, যিলহজ মাসের প্রতিটি দিন অন্য মাসের এক হাজার দিনের সমান আর আরাফার দিন হলো অন্য মাসের ফযিলতের দিক দিয়ে দশ হাজার দিনের সমান। লাতায়েফুল মাআরিফ, পৃ-৪২৯। হযরত হাসান (রা.) থেকে বর্ণিত, যিলহজ মাসের প্রথম দশদিনের মধ্যে একদিনের রোযা অন্য সময়ের দু’মাস রোযা রাখার সমান। নবী করিম (সা.)-এর কোন কোন স্ত্রী থেকে বর্ণিত আছে যে, নবী (সা.) যিলহজ মাসের প্রথম নয় দিনের রোযা তরক করতেন না। হযরত কা’ব (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহ তায়ালা কালের মধ্যে শাহরুল হারামকে পছন্দ করেছেন, শাহরুল হারামের মধ্যে যিলহজকে পছন্দ করেছেন এবং যিলহজ মাসের মধ্যে প্রথম দশদিনকে পছন্দ করেছেন। নাসাঈ শরীফ ৬/২১১।

সুতরাং জেনে নেয়া দরকার যে, এই দিবসগুলোতে আমাদের কী করনীয় রয়েছে- ১. নবী করিম (সা.) এখানে আল্লাহ তা’আলার কাছে বেশি বেশি দোয়া করতে বলেছেন, অতএব, বেশি বেশি দোয়া করা।
২. বেশি বেশি কুরআন তিলাওয়াত করা। প্রতিদিন তিন পারা করে পড়লে, দশ দিনে এক খতম হয়ে যায়। ৩. নবী করিম (সা.)-এর প্রতি বেশি বেশি দরূদ শরীফ পড়া। যাঁর মাধ্যমে আমরা এতকিছু পেয়েছি, তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বরূপ বেশি বেশি দরূদ শরীফ পড়া। ৪. হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী, বিশেষ করে, লা-ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু আল্লাহু আকবর, আলহামদুলিল্লাহ এই দোয়াসমূহ বেশি বেশি পড়া।৫. আবু দাউদ শরীফের সহিহ হাদিসে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) যিলহজ মাসের একেবারে প্রথম থেকে লাগাতার ৯ দিন রোজা রেখেছেন। যা অনেক অনেক বেশি সওয়াব এবং মর্যাদাপূর্ণ। এক্ষেত্রে, যারা অসুস্থ কিংবা দূর্বল, তাদের রাখার প্রয়োজন নেই। তবে, যারা নয়দিন রোজা রাখতে পারবেন না, তারা যেন, ৯ই যিলহজ, ইয়াওমে আরাফাহ’র হজের দিন অন্তত রোজা রাখবেন। কারণ, নবী ( সা.) বলেছেন, যারা এই দিনে রোজা রাখেন, আল্লাহ তা’আলা তাদের দুই বছরের গুনাহ মাফ করে দেন। চলমান এবং আগামী বছরের। সুতরাং অন্তত এটা যেন বাদ না যায়। ৬. যাদের সামর্থ্য আছে, নিয়মিত বেশি বেশি ছদকা করা। একটা রুটিন করলে ভালো হয়। মনে করেন, আমি একহাজার টাকা বাজেট করলাম এবং প্রতিদিন একশ টাকা করে দান করলাম। যাতে, প্রতিদিনই আমলটা আমি পেয়ে যাচ্ছি। যাদের বেশি দেয়ার সামর্থ্য আছে, তারা বেশি করে দেবেন। ৭. মা-বাবা, খালা, মামা, চাচা, চাচী, ভাইবোন এরকম আত্মীয় স্বজনদের কবর জিয়ারত করা এবং সকল আত্মীয় স্বজনদের খোঁজ খবর নেওয়া। কারণ এটাও একটা বড় ইবাদত। ৮. এই দিনের তাৎপর্য উল্লেখ করে পরিবার পরিজন, সন্তান সন্ততিদেরকে নিয়ে বৈঠক করা। এই আমলগুলো করতে তাদেরকে উদ্বুদ্ধ করা। ৯. এই দিনে নফল ইবাদতসমূহ বেশি বেশি করা। বিশেষ করে, তাহাজ্জুদের নামাজ বেশি বেশি পড়া। আট রাকাত, চার রাকাত, না পারলে অন্তত দুই রাকাত হলেও আদায় করা। ফজরের নামাজের শেষে সূর্য উদয়ের পর ইশরাকের নামাজ, সালাতুদ দোহা, সূর্য ঢলে যাওয়ার পর সালাতুজ জাওয়াল, অজুর পরে তাহিয়্যাতুল অজু ইত্যাদি নফল ইবাদত বেশি বেশি করা এবং ফজরের নামাজের পরে ও মাগরিবের আগে বেশি বেশি দোয়া করা। ১০. যদি সুযোগ থাকে, তাহলে, বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা কিংবা মক্তবে বা ফ্ল্যাট বাড়িতে যাদের মসজিদ আছে সেখানে, যারা রোজা রাখেন, তাদের জন্য ইফতারের ব্যবস্থা করা। ১১. এইবার যেহেতু লকডাউনের সময় পুর্বের মত বড় আকারে কোরবানি দেয়ার সুযোগ নেই, তাই, যারা বড় আকারে কোরবানি করতেন, তারা ছোট আকারে গরু বা ছাগল দিয়ে কোরবানি করে, বাকি টাকা দিয়ে সাধ্যমতো দশ বিশটা ছাগল কিনে, বিভিন্ন পরিচিত-অপরিচিত গ্রামেগঞ্জের গরিব, মিসকিন, সহকর্মী, আত্মীয় পরিজনদেরকে কোরবানির নিমিত্তে একেকটি করে দিয়ে দিতে পারেন। যাতে, তারাও সীমিত আকারে হলেও ঈদের আনন্দ উপভোগ করার কিংবা অব্যক্ত অভাব মোচনের সুযোগ পেতে পারেন। এতে অনেক অনেক সাওয়াবের অধিকারী আপনি হবেন, ইনশাআল্লাহ। মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সকল সৎকর্মগুলো কবুল করুন। আমীন।

লেখক : অধ্যক্ষ এম সোলাইমান কাসেমী, শিক্ষা চিন্তক ও গবেষক।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট